একযোগে ২৬ হাজার বিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগ

আগামী বছর সারাদেশের ২৬ হাজার বিদ্যালয়ে একযোগে প্রাক প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ আকরাম-আল-হোসেন। বৃহস্পতিবার রাজধানীর গুলশানে স্পেকট্রা কনভেনশন সেন্টারে দেশব্যাপী কাগজবিহীন বিদ্যালয় পরিদর্শন ব্যবস্থা ই মনিটরিং-এর উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি।

সচিব বলেন, ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ হবে প্রাথমিকে মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিতকরণের ভিত্তি বছর। প্রাথমিক শিক্ষার মানোন্নয়নে কর্মকর্তাদের জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে। ১ জানুয়ারি মধ্যে সব স্কুলে বই পৌঁছে যাবে। ২ জানুয়ারি থেকে সারাদেশে একযোগে পাঠদান শুরু হবে। এসময় সরকারের লক্ষ্য বাস্তবায়নে মাঠ পর্যায়ের শিক্ষা কর্মকর্তাদের সর্বাত্মক সহায়তা কামনা করেন তিনি।

গণশিক্ষা সচিব মোঃ আকরাম-আল-হোসেন বলেন, শিক্ষা কর্মকর্তাদের জবাবদিহিতা নিশ্চিতকরণে কাগজবিহীন বিদ্যালয় পরিদর্শন ব্যবস্থা ই মনিটারিং যুগান্তকারী ভূমিকা পালন করবে। এতে করে বিদ্যালয় পরিদর্শন ও পর্যবেক্ষণে স্বচ্ছতা জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা সহজ হবে। তিনি বলেন, প্রাথমিক শিক্ষার মানোন্নয়নে ঝড়ে পড়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা কমিয়ে আনতে হবে। তাই বিদ্যালয়ে উপস্থিতির হার বাড়াতে হবে। তাই প্রাথমিক বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে হাজিরা ব্যবস্থা প্রণয়নের পরিকল্পনা রয়েছে।

আগামী বছর সারাদেশের ২৬ হাজার বিদ্যালয়ে একযোগে প্রাক প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ আকরাম-আল-হোসেন। বৃহস্পতিবার রাজধানীর গুলশানে স্পেকট্রা কনভেনশন সেন্টারে দেশব্যাপী কাগজবিহীন বিদ্যালয় পরিদর্শন ব্যবস্থা ই মনিটরিং-এর উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি।

সচিব বলেন, ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ হবে প্রাথমিকে মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিতকরণের ভিত্তি বছর। প্রাথমিক শিক্ষার মানোন্নয়নে কর্মকর্তাদের জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে। ১ জানুয়ারি মধ্যে সব স্কুলে বই পৌঁছে যাবে। ২ জানুয়ারি থেকে সারাদেশে একযোগে পাঠদান শুরু হবে। এসময় সরকারের লক্ষ্য বাস্তবায়নে মাঠ পর্যায়ের শিক্ষা কর্মকর্তাদের সর্বাত্মক সহায়তা কামনা করেন তিনি।

গণশিক্ষা সচিব মোঃ আকরাম-আল-হোসেন বলেন, শিক্ষা কর্মকর্তাদের জবাবদিহিতা নিশ্চিতকরণে কাগজবিহীন বিদ্যালয় পরিদর্শন ব্যবস্থা ই মনিটারিং যুগান্তকারী ভূমিকা পালন করবে। এতে করে বিদ্যালয় পরিদর্শন ও পর্যবেক্ষণে স্বচ্ছতা জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা সহজ হবে। তিনি বলেন, প্রাথমিক শিক্ষার মানোন্নয়নে ঝড়ে পড়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা কমিয়ে আনতে হবে। তাই বিদ্যালয়ে উপস্থিতির হার বাড়াতে হবে। তাই প্রাথমিক বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে হাজিরা ব্যবস্থা প্রণয়নের পরিকল্পনা রয়েছে।

Facebook Comments